শিরোনাম :
-->
English
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৮ ইং

প্রচ্ছদ » জাতীয় !!

রাখাইনে রোহিঙ্গা হত্যার দায়ে মায়ানমারের ৭ সেনার কারাদণ্ড

11 Apr 2018 10:09:26 AM Wednesday BdST

মায়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার দায়ে ৭ সেনা সদস্যকে কারাদণ্ড দেয়ার কথা জানিয়েছেন দেশটির সেনা সূত্র। সেনা সূত্রকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, চলতি বছরের জানুয়ারিতে রাখাইন প্রদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ১০ রোহিঙ্গা মুসলিমকে হত্যার দায়ে তাদের প্রত্যেককে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হচ্ছে। গত বছরের সেপ্টেম্বরের শুরুর দিকে রাখাইনের উত্তরাঞ্চলীয় গ্রাম ইনদিনে সেনাবাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদীরা ১০ রোহিঙ্গাকে গুলি করে হত্যা করে। তাদের রাখা হয় গণকবরে। ঘটনার সরেজমিন অনুসন্ধানে নেমেছিলেন রয়টার্সের দুই সাংবাদিক। ডিসেম্বরে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর অভিযোগ আনা হয় দাফতরিক গোপনীয়তা ভঙ্গের আইনে। ফেব্রুয়ারিতে কর্তৃপক্ষ রয়টার্সকে জানায়, ঘটনার অভ্যন্তরীণ তদন্ত শুরু করেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। তবে কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে রয়টার্সের সাংবাদিকদের দাফতরিক গোপনীয়তা ভঙ্গের সঙ্গে ওই তদন্ত সম্পর্কহীন বলে দাবি করা হয়। সেই তদন্তের ভিত্তিতে দোষী সাব্যস্ত ৭ সেনাকে কারাদণ্ড দিয়েছে মায়ানমারের সেনাবাহিনী। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের ১০ তারিখে মায়ানমারের সেনাবাহিনী দাবি করেছিল, ২০০ জঙ্গির একটি দলে ছিল হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়া ১০ রোহিঙ্গা। তারা নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর আক্রমণ চালালে বৌদ্ধ গ্রামবাসী তাদের তলোয়ার দিয়ে আক্রমণ করে। আর সেনারা গুলি চালায়। সেনাপ্রধান প্রধান মিন অং হ্লাইংয়ের ফেইসবুক পাতায় প্রকাশিত এক বিবৃতিতে জানানো হয়, ১০ রোহিঙ্গার হত্যাতাণ্ডে সহযোগিতা ও জড়িত থাকার অভিযোগে ওই সেনাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। বিবৃতিতে জানানো হয়, হত্যাকাণ্ডে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে ৪ সেনাকে সেনাবাহিনী থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে প্রত্যন্ত অঞ্চলের কারাগারে ১০ বছরের কারাদণ্ড ও কঠোর পরিশ্রমের আদেশ দেওয়া হয়েছে। বাকি ৩ সেনাকে বাহিনী থেকে প্রত্যাহারের পাশাপাশি তাদের পদের অবনয়ন ঘটানো হয়েছে। দেওয়া হয়েছে একই পরিমাণ সাজা এবং শ্রমের আদেশ। বিবৃতিতে জানানো হয়, ঘটনায় জড়িত পুলিশ ও বেসামরিক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়া এখনও চলমান রয়েছে। অর্ধশতাব্দীরও বেশি সময় ধরে সামরিক-বৌদ্ধতন্ত্রের প্রচারণায় রাখাইনে ছড়ানো হয়েছে রোহিঙ্গা-বিদ্বেষ। ২০১৭ সালের আগস্টে অভিযান জোরদার করার আগের কয়েক মাসের সেনাপ্রচারণায় সেই বিদ্বেষ জোরালো হয়। এরপর শুরু হয় সেনা-নিধনযজ্ঞ। হত্যা-ধর্ষণ ও ঘরবাড়িতে আগুন দেওয়ার মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের মাধ্যমে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে বাধ্য করা হয় ৬ লাখ ৯২ হাজার মানুষকে।

এই সংবাদ সম্পর্কে আপনার মতামত দিন

পাঠকের মন্তব্য (0)

সর্বশেষ সংবাদ

সংবাদ আর্কাইভ

নামাজের সময়সূচী

ওয়াক্ত সময় শুরু
ফজর ০৪:১০
জোহর ১১:৫৮
আসর ১৫:২৫
মাগরিব ১৮:২৬
এশা ১৯:৪৬
সূর্যোদয় ০৫:৩০
সূর্যাস্ত ১৮:২৬
তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১৮